Monday, 21 March 2016

সাত ভাই চম্পা ও পারুল বোন

সাতটি চম্পা ফুল শেষ অবধি সাত রাজপুত্র আর পারুল তাদের একমাত্র বোন আবার সবাইকে পেয়ে রাজার আনন্দ দেখে কে ! ছোটরাণীর দুঃখের দিন শেষ ছোটরাণীকে তার ছোট্ট কুঁড়ে ঘড় থেকে মহা সমারোহে বৃদ্ধ রাজা নিয়ে এলেন তার সুবিশাল রাজপ্রাসাদে সারা রাজ্যে খুশীর আবহাওয়া সেই  হিংসুটে বড় রাণীরাও উচিৎ শাস্তি পেয়েছে

দিন সুন্দর ভাবে কেটে যাচ্ছে সাত ফুটফুটে রাজকুমার সুন্দর ভাবে সেজে রাজার সাথেই রাজসভায় যান মন্ত্রী থেকে আমলা সকলেই তাদের সম্মান করে আর পারুল াজকন্যা তার মায়ের সাথে হাত মেলান নানা ঘড়ের কাজে রাজার সকল চিন্তা দূর হয়ে গেছে

এমন সময়ে একদিন এক প্রজা এসে কাতর স্বরে জানায় , “ মহারাজ আমার সামান্য খেতের ফসল সোনার ধানে ভরে ছিল কিন্তু আজ ভোর বেলায় দেখলাম সমস্ত শস্য উধাও , এক দানাও পরে নেই !”
কথা শুনেই সকলেই অবাক হয়ে যায় রাজার সাথে সাত ভাইয়ের মনও চঞ্চল হয়ে ওঠে রাজা ভাবেন, তার রাজত্বে তো এমন ঘটনা ইতিপূর্বে হয় নি
যাইহোক , রাজা তার প্রধান খাজাঞ্চীকে বলে দিলেন এই গরীব চাষিকে যেন এক হাজার স্বর্ণ মুদ্রা দিয়ে দেওয়া হয়

রাজ নির্দেশে গরীব চাষি খুশী মনে রাজ সভা থেকে বিদায় নেয়   রাজা তার পুত্রদের সাথে সেদিনকার মত সকল কাজ শেষ করে ফিরে গেলেন রাজভবনে রানীমা পরিপাটী করে আজ নিজের হাতে রান্না করেছেন দাস দাসীদের সাহায্যে পারুল বোন দাদাদের , বাবার পাতে তুলে দিচ্ছেন নানা সুস্বাদু ব্যঞ্জন
রাতে সবাই ঘুমিয়ে পড়লেন নিশ্চিন্তে এমন সময় সারা প্রাসাদ জুড়ে শুরু হল ভয়ংকর সব শব্দ সাত ভাই খাপ থেকে তলোয়ার বার করে ছটাছুটি করলেন এখন তারা যথেষ্ট স্বাবলম্বী , বৃদ্ধ রাজার প্রধান সাত সৈনিক যেন

                       রাজা মশাই বাইরে বেড়িয়ে দেখলেন, প্রাসাদ জুড়ে রাক্ষসের দল শুরু করেছে উৎপাত কিছু রাক্ষস আস্তাবলের অশ্বদের ধরে ধরে খাচ্ছে , কেওবা রাজ উদ্যানের সব ফল ফুল ছিঁড়ে তছনছ করে দিচ্ছে আর সাত ভাই বীরবিক্রমে লড়াই করে যাচ্ছেন তলোয়ারের ঘায়ে ফিনকী দিয়ে ছুটছে রাক্ষসদের কালো রক্তের ধারা

সারা রাত ধরে লড়াই চলতে চলতে রাজপুত্ররা, রাক্ষসরাও ক্লান্ত এদিকে ভোর হয়ে আসছে আর সূর্য উঠলেই রাক্ষসদের সমস্ত শক্তি চলে যায় তাই সে রাতের মত রাক্ষসদল শেষ আক্রমণ চালাল
রাক্ষসদের মধ্যে যে প্রধান সে রাজাকে বলে উঠল,
হাঁউ মাঁউ খাঁউ
রাজা শর্ত দিলাম যাও
পারুলকে ফিরে আবার পাবে
একটি করে মানুষ দিতে হবে

বলেই রাক্ষসরা সদলবলে ডানা মেলে সোঁ সোঁ করে ভোরের আলো ঠিক ফুটবার আগেই আকাশে উড়ে চলে গেল

রানীমা আর রাজার তো মাথায় হাত এমন হবে কোন দিনই ভাবেন নি সাত ভাই রক্ত মুছে বাবা মায়ের কাছে ফিরলেন তখন বৃদ্ধ রাজা আর রাণী ওদের দেখেই ছুটে গিয়ে জড়িয়ে ধরে খুব করে কাঁদতে লাগলেন তাদের একটিমাত্র কন্যা পারুলকে রাক্ষসরা ধরে নিয়ে গেছে দুঃখ কি ভাবে সামলান !
                             পরের দিন রাজামশাই এই ভয়ানক অথচ খারাপ খবরটি রাজসভার সবাইকে দিলেন তিনি মাথা নীচু করে বসে ছিলেন বেশ কিছুক্ষণ অবশেষে প্রধান মন্ত্রী সভার দিকে তাকিয়ে বললেন, “ রাক্ষসরা বলে গেছে প্রতি রাতে তাদের জ্যান্ত একটি করে মানুষ দিতে হবে , নাহলে তারা রাজকন্যা পারুলকে আর কোনদিনই ছাড়বে না
এমন ভয়ানক খবরে সকলেই অস্থির হয়ে পড়লেন তাদের রাজ্যে রাক্ষসদের উৎপাত আগে কোন দিনই হয় নি

সাত ভাই চম্পা তারা কিছুতেই মন থেকে মেনে নিতে পারছিলেন না যে তাদের বোনের জন্য নিরীহ প্রজাদের মরতে হবে ! তাই তারা বাবাকে বললেন একসাথে , “ পিতা যাই হোক , আমাদের পারুলের জন্য কোন নিরীহ প্রজাকে আমরা কিছুতেই রাক্ষসদের হাতে তুলে দেব না
একথা শুনে পুত্রদের প্রতি গর্ববোধ যেমন হল ঠিক তেমনি পারুল মা জন্য মনটাও উঠল কেঁদে ছোটরাণীরও এক মত রাজামশাই তখন বুক বেঁধে ঘোষকদের খবর দিতে বলে দিলেন রাজ্যের সকল প্রজাদের কাছে

ঘোষকের দল সারা রাজ্যে বিশাল বিশাল ঢ্যাঁড়া পিঠিয়ে ঘোষণা করে দিল
রাজ্যবাসী প্রজাগণ শোন দিয়া মন
রাজার আদেশ, কারো হবে না দিতে জীবন,
সাত কুমার লড়বে দুষ্ট রাক্ষসদের সনে-
দিও আশিস, থাকহ নিশ্চিন্ত মনে...
এই রাজ আদেশ শুনে প্রজারা রাজা সাতপুত্রকে ধন্য ধন্য বলে উঠল আর দিয়ে গেল তাদের প্রান ভরা আশীর্বাদ
রানীমা সহ সকলের গর্বের সাথে মনটাও হু হু করে উঠছে যদি রাক্ষসদের কানে একথা যায় তবে কী তারা পারুলকে ছেড়ে দেবে ! মায়ের মনের এই কথা বুঝতে পেরে বড় কুমার স্বান্তনা দিয়ে বললেন , “ মা আমরা সাত ভাই আমাদের পারুল বোনকে ঠিক ফিরিয়ে আনব, চিন্তা করো না বৃথা
রাজা রানী সকলেই জানেন তাদের পারুল খুবই সাহসী আর বুদ্ধিমতি
রাক্ষসদের কানে রাজ নির্দেশ যেতে বেশী দেরী করে নি তাদের লম্বা লম্বা কান অনেক দূরের কথা সহজেই শুনতে পায় রাত হতে বেশী বাকী নেই এখন তারা সব সাধারণ মানুষদের মত রূপ নিয়ে আছে গুহার মধ্যে
পারুলকে তারা একটা আগুনের খাঁচার মধ্যে আটকে রেখেছে একটা মুলোর মত দাঁত উঁচু রাক্ষস নিজের বিশাল রূপ ধারণ করে রাজকন্যা পারুলকে বলল
সাত ভাই চম্পার এক মাত্র বোন
রাজা করেছে যে ভুল-
দিতে হবে খুব মাশুল ,
আজ রাতেই খাব প্রাসাদ,বাঁচবে না একজন
রাজকন্যা পারুলও সাহস দেখিয়ে বলেন ,
সাত ভাই চম্পা পারুল ফুল
আমাকে ধরে করেছ মস্ত ভুল
পারুল রাজকন্যার কথা শুনে রাক্ষসরা হেঁসে কুটিপাটি রাতের আঁধার অনেক আগেই নেমে গেছে ধীরে ধীরে মানুষের রূপ ছেড়ে কুৎসিত সব চেহারায় পরিণত হয় শয়ে শয়ে রাক্ষসদের দল আগুনের খাঁচা ভাল করে পরীক্ষা করে তারা হুস করে একসাথে হাওয়ার মধ্যে মিলিয়ে গেল রাজকুমারী পারুল ভালো করে এবার চারিপাশটা খাঁচার ভিতর থেকেই দেখলেন সারা জায়গায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে মাথার খুলি , হাড়গোড়
এমন সময় তার নজরে আসে একটা পক্ষীরাজ ঘোড়া মনে মনে ভাবলেন , আবার কোন রাক্ষস নয়তো ! তাও পারুল গলা উঁচু করে পক্ষীরাজের দিকে তাকিয়ে বলেন ,
যক্ষ পিশাচ মানব পশু করো না খল
পারুল আমি,রাজার কন্যা,
পক্ষীরাজ অশ্ব সেজে করছ কেন ছল !”
অদ্ভুত ভাবে মাথা ঝাঁকিয়ে পক্ষীরাজ চোখের জল ফেলতে ফেলতে বলে ,
জানি আমি তুমি রাজার কন্যে
রাক্ষস নিয়ে এসেছে অরন্যে
কথা শুনে পারুল বুঝলেন তার মত একেও খাওয়ার জন্য রাক্ষসরা নিয়ে এসেছে মায়া হল তার মনে ভালো করে নজর দিতেই দেখলেন , পক্ষীরাজের একটি ডানা রাক্ষসরা কেটে ফেলেছে আর সেখান থেকে বয়ে যাচ্ছে রক্ত
আবার রাজকন্যা পক্ষীরাজকে জিজ্ঞাসা করলো ,
আমি বাঁচলে তোমারও মুক্তি-
দিলাম তোমায় প্রতিশ্রুতি ;
রাক্ষসকুল কেমনে হবে ধ্বংস
উত্তর কী আছে, করলাম যা প্রশ্ন ?”
পক্ষীরাজ একটি ডানা ঝাপটাতে ঝাপটাতে মাথা নাড়িয়ে কিছু বলতেই রাজকন্যা পারুলের মুখে ফুটে উঠল হাসি
সে রাতে আরও বীভৎস চেহারা নিয়ে রাজপ্রাসাদ প্রায় ধ্বংস করার সমস্ত চেষ্টা চালাল রাক্ষসের দল রাজা, রানী আর সাত ভাইকে নানা রূপ ধারণ করে ভয় দেখাতে লাগল রাক্ষসদের গন্ধে সারা রাজ্যের বাতাস ভারী হয়ে উঠল মায়া বিদ্যায় আচমকা নীল বিষের বৃষ্টি শুরু করে দিল তারা গরীব প্রজাদের গায়ে সেই জল পড়তেই তারা যন্ত্রণায় চীৎকার করতে করতে পাথরে পরিণত হয়ে যায় সব দেখে রাজা হায় হায় করতে থাকেন
           রাজপুত্ররা সারারাত ধরে চালিয়ে গেলেন অসীম যুদ্ধ কিন্তু শেষ রক্ষা হল না ! যুদ্ধ , ধ্বংস শেষ করে রাশি রাশি রাক্ষসরা যখন সূর্যের আলো ফুটতেই পালাল ঠিক তখনই মন্ত্রী এসে দিলেন এক দুঃসংবাদ !
ছোট রানী সে কথা শুনেই বিলাপ করতে লাগলেন বললেন , “ আমার জন্যই এমন হচ্ছে , আমি না আসলে এমন হত না !”
রাজা গম্ভীর ভাবে বললেন , “ এমন কথা কয় না রাণী ! তুমি না আসলে আমি তোমাকে আর আমার সন্তানদের ফিরেই পেতাম না
মন্ত্রী ব্যাস্ত হয়ে জিজ্ঞাসা করলেন , “ মহারাজ এখন কী উপায় হবে বলুন ! সাত রাজকুমারকেও রাক্ষসরা ধরে নিয়ে গেছে প্রতিশোধ নিতে ?”
মন্ত্রীকে রাজা হাত নেড়ে বিদায় জানালেন মন আজ খুবই বিষণ্ণ রানীকে সঙ্গে নিয়ে গেলেন তার ইষ্ট দেব মন্দিরে হাতজোড় করে জানালেন তারা প্রার্থনা
তারপর রাজা মন্ত্রী আমাত্যদের দিয়ে বেরলেন প্রাসাদের বাইরে তার সোনার রাজ্য যেন শ্মশানে পরিণত হয়ে গেছে স্বর্ণ ধান ক্ষেত্র পুড়ে ছারখার সকল প্রজা ধূসর বর্ণের পাথরে দাঁড়িয়ে আছে ; যেন নির্বাক হয়ে রাজার কাছে অনুনয় করছে তাদের বাঁচাবার জন্যে
ফিরে এলেন বৃদ্ধ রাজা তার প্রাসাদে শূন্য এই বিশাল ভবনে তার থাকার আর মন নেই উপায়ও খুঁজে পাচ্ছেন না কী করে এদের সকলকে বাঁচাবেন ! এমন সময় রাজার পোষা ময়না ডেকে ওঠে
রাজা মশাই রানীমা কর না দুঃখ
সাতভাই পারুল বোনের ভাঙবে না সখ্য ;
সোনার জলে উঠবে বেঁচে রাজ্য
ইষ্টদেব সহায় আছেন , মনে রাখ ধৈর্য
চোখের জল মুছে রানীমা আর মহারাজ ময়নার কাছে গিয়ে পিঠে গলায় হাত বুলিয়ে দিতে লাগলেন একটাই কথা ভাবলেন তারা , ‘ ঠিক হয়ে সব , সাত ভাই চম্পা পারুল যেন থাকে মঙ্গলে !’
নিকশ অন্ধকারে গুহার মধ্যে রাক্ষসরা আজ কোথাও যাবে না বলে ঠিক করেছে নরমুণ্ডের উপর জ্বালিয়েছে মশাল তার শিখার আলোয় একটা নির্দিষ্ট কক্ষ আলোকিত সাত ভাইকে রাক্ষসরা বন্ধী করে রেখেছে আলাদা আলাদা খাঁচায় আজ এদের একটা একটা করে কড়মড় করে খাবে
বড়কুমার ,মেজকুমার, সেজকুমার, ফুলকুমার, সোনাকুমার আর কুমারকে একটা বিশাল মাটির খাঁচার মধ্যে আটকে রেখেছে ছোটকুমার তাদের বেশী ক্ষতি করেছে আর তার তেজও সাংঘাতিক, তাই তাকে পুড়েছে জলের খাঁচার মধ্যে
রাক্ষস সর্দার ছুঁচলো লম্বা দাঁত বার করে সবার দিকে তাকিয়ে হাসছে মুখ দিয়ে বেরোচ্ছে দুর্গন্ধ , মুখে লালার ফোয়ারা মাঝে মধ্যে জট পাকানো নখ দিয়ে খুঁচিয়ে দিয়ে বলে উঠছে ,
সাত ভাই চম্পা জাগ রে
এবার আমরা কড়মড়িয়ে খাবরে !”
আর সব রাক্ষসরা সর্দারের এই কথা শুনে কী হাসি হাঁসতে লাগল ! তারা আনন্দে আত্মহা্রা হয়ে কিছুক্ষণের জন্য ভুলেই গেল সাত ভাই চম্পাদের কথা
ঠিক এমন সময় আগুন খাঁচায় বন্ধী পারুল সজোরে ডেকে ওঠে ,
সাতভাই চম্পা পারুল বোন আছে এখনো
রাক্ষস বংশ নিপাট হবে, তোমরা শোনো
পক্ষীরাজ পক্ষীরাজ নাড়াও তোমার ডানা
ছোট দাদা জেগে ওঠ , ভাঙবে খাঁচা খানা

যেই না বলা অমনি পক্ষীরাজ তার একটা ডানা দিয়ে বহুকষ্টে জলের খাঁচায় বন্ধী রাজকুমারের দিকে এগিয়ে গেল ছোটকুমার থেকে শুরু করে সব ভাই জেগে উঠেছেন পারুল বোনের ডাকে পুনরায় ডাক তাদের বহুপূর্বের চেনা আহ্বান

পক্ষীরাজ বিশাল ডানা মেলে জোরে হাওয়া দিতে দিতে যেই না জলের খাঁচায় মধ্যে ডানা ঢুকিয়েছে ! বড় রাজকুমাররা দেখতে পেলেন , ছোটকুমারের খাঁচায় একটা ছোট্ট আড়াল হয়েছে আর সেই ফাঁকেই ছোটকুমার খাঁচার থেকে বেড়িয়ে পরেছেন কিন্তু হায় ! জল সামান্য জল না ! ডানায় লাগতেই পক্ষীরাজের শেষ ডানাটিও ধীরে ধীরে গলে পরছে তাও পক্ষীরাজ চেষ্টা চালিয়ে যায়

                        এদিকে আওয়াজ শুনে রাক্ষসরাও হুড়মুড়িয়ে চলে এসেছে কক্ষে কিন্তু এলে হবে কী ! জল খাঁচা ডানার স্পর্শে ভেঙে গেছে শুধু তাই নয় ! জলের তোরে নিভে গেছে আগুন মাটির খাঁচাও !
সর্বনাশ ! রাক্ষসরা জানতো , একটি খাঁচা যদি ভেঙে যায় তাহলে সব খাঁচা নষ্ট হয়ে যাবে আর খাঁচা শুধুই রাক্ষসদের হাতেই খোলে িন্তু অন্য কেও ছুঁলে সঙ্গে সঙ্গে সব মায়াজাল নষ্ট হয়ে যাবে

রাক্ষস সর্দার মুহূর্তের মধ্যে পক্ষীরাজের গলাটা দুহাত দিয়ে ছিঁড়ে ফেলল আর , সাত ভাই চম্পা এবং পারুল বোনকে যেই হাত দিয়ে ধরতে গেল অমনি রাক্ষসরা দেখল , আগের মতই এক ঘটনা ; সেই যখন রাজকুমাররা ছোট ছিলেন এখনও ঠিক তেমন ভাবে তরতরিয়ে সাতভাই আর পারুল আকাশের দিকে উঁচুতে উঠতে লাগলো

রাগে অন্ধ হয়ে রাক্ষস সর্দার নিজের দেহের আকারও বাড়াতে থাকে কিন্তু রাজকুমাররা আর পারুল ফুল হয়ে আরও উঁচুতে উঠে যায়
দেখতে দেখতে ভোরের আলো ফুটে উঠেছে সাত ভাই চম্পা আর পারুল ফুল হয়ে সুন্দর পাপড়ি মেলে ধরেছে নির্মল সুগন্ধে চারিদিক মাতোয়ারা কিন্তু রাক্ষসদের সুগন্ধ সহ্য হবে কেন ! তারা তো ভালো জিনিষ সইতে পারে না !

রাক্ষস সর্দারের দেহেই ছিল সব রাক্ষসদের প্রান পাখি যেই না মিষ্টি গন্ধ নাকে গেছে অমনিবাবা গো , গেলুম গোবলে চিৎপাত হয়ে পরে গেল সর্দার আর বাকী রাক্ষসদেরও একই দশা সব রাক্ষস মুহূর্তের মধ্যে শেষ

রাক্ষসরা শেষ হয়ে যেতেই সাত রাজকুমার আর পারুল আবার মানুষের মত হয়ে নীচে নেমে আসেন পক্ষীরাজ অশ্ব অনেক দিন ধরেই এখানে বন্ধী , তাই সে সব জানতো সেই তো পারুলকে সব বলে দিয়েছিল পারুল রাজকন্যা নীচে নেমেই ভাঙা জলখাঁচার জলের দিকে তাকেলেন সোনার সূর্যের আলোয় তা আরও ঝলমল করে উঠছে সেই জল পক্ষীরাজের গায়ে যেই না ছিটিয়েছেন , তখনই সাত ভাই আর বোনকে অবাক করে দিয়ে পক্ষীরাজ এক সুবেস রাজকুমারে পরিণত হয়ে যায়

সবাই মিলে তখন রওনা দেন তাদের রাজ্যে পথে যেতে যেতে শুনছিলেন , প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য রাক্ষসরা নির্মল রাজকুমারকে ডানা কাটা পক্ষীরাজে পরিণত করে দেয়

প্রাসাদে আসতেই সাত ভাই চম্পা মা মা , বাবা বাবা বলে ডেকে ওঠেন রাজা রানী , মন্ত্রীরা দৌরে এসে পুত্র কন্যাকে বুকে জড়িয়ে ধরেন সব কথা শোনার পর , রাজা নিজের হাতে সেই সোনার জল পাথরে পরিণত গাছপালা, প্রজাদের উপর ছিটিয়ে দেন একটু পরেই মন্ত্র আর ওই জলের গুণে আবার সকলে আগের মত সজীব হয়ে ওঠে সকল প্রজারা খুশী হল এদের কীর্তি শুনে

এদিকে , রাজার খুব পছন্দ হয়েছে নির্মল রাজপুত্রকে তিনি রানী ঠিক করলেন পারুল রাজকন্যার সাথে এই সাহসী রাজকুমারের বিবাহ দেবেন


নির্দিষ্ট দিনে সকলের আশীর্বাদে বিবাহ হল তাদের বৃদ্ধ রাজা বড়কুমারকে রাজভার দিয়ে রানীকে নিয়ে দেশ বিদেশ বেড়াতে গেলেন ।।

No comments:

Post a Comment

মহাভারতে অর্জুন থেকে বৈদিক যুগে নৃত্যকলা

আধুনিক জীবনে নৃত্য আমাদের সকলের কাছে মনরঞ্জনের জন্য এক বৃহৎ মাধ্যম । কিন্তু এই শিল্পের শিকড় খুব যে আধুনিক নয় তা আমরা জানি । বেদ থেকে...